Image: google

মুরগীর মাধ্যমে ছড়াচ্ছে নতুন রোগ! মৃত্য ১ জন, অসুস্থ ৫ শতাধিক

মুরগীর মাধ্যমে নতুন ছড়াচ্ছে নতুন রোগ! মৃত্য ১ জন, – সারাবিশ্বে চরম আতঙ্কের নাম হয়ে দাঁড়িয়েছে করোনাভাইরাস। এই পরিস্থিতির মধ্যেই নতুন আতঙ্ক ছড়াচ্ছে ‘সালমোনেলা’। জানা গেছে, সালমোনেলা ব্যাকটেরিয়ায় আক্রান্ত হয়ে

একজন মারা গেছে। করোনাভাইরাস মহামারীর আকার নিয়েছে। এই প্রাণঘাতী ভাইরাসকে সামলাতেই বিশ্বের প্রতিটি দেশের সরকার হিমশিম খাচ্ছে। এরই মধ্যে আফ্রিকার কঙ্গোয় ইবোলা ভাইরাসের প্রকোপের খবর শোনা গিয়েছিল। নতুন করে কয়েকজন আক্রান্ত হয়েছিলেন। এবার জানা যাচ্ছে নতুন আরেক ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ শুরু হয়েছে। সালমোনেলা নামের

এই ব্যাকটেরিয়া ছড়াচ্ছে মুরগি থেকে। এখনো পর্যন্ত সালমোনেলা ব্যাকটেরিয়ায় আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছেন একজন। অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন ৮৬ জন। ইউএস সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন-এর পক্ষ থেকে সালমোনেলা ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমনের কথা জানানো হয়েছে। সিডিএস জানিয়েছে, গত ২ মে থেকে সালমোনেলায়

আক্রান্ত হয়ে মোট ৩৬৮ জন অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। পোলট্রি থেকেই ছড়ায় সালমোনেলা। এমনই জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। চলতি বছরে মোট ৪৬৫ জন এই ব্যাকটেরিয়ায় আক্রান্ত হয়ে অসুস্থ হয়েছেন। অনেকেই সেরে উঠেছেন। তবে এখনো ৮৬ জন হাসপাতালে ভর্তি। আমেরিকার মোট ৪২ টি প্রদেশ থেকে এই নতুন ব্যাকটেরিয়া ছড়ানোর খবর এসেছে। বিশেষজ্ঞরা

জানিয়েছেন, পোল্ট্রিতে থাকা মুরগির শরীর থেকেই সালমোনেলা ছড়াচ্ছে। গত বছরও এই একই সময়ে সালমোনেলায় অসুস্থ হওয়ার খবর পাওয়া গিয়েছিল। ওকলাহোমায় সালমোনেলা ব্যাকটেরিয়ায় আক্রান্ত হয়ে একজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে। অসুস্থদের মধ্যে পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশুর সংখ্যা বেশি। জানা গিয়েছে, প্রতি তিনজনের মধ্যে

একজন শিশু অসুস্থ হয়েছে। করোনার মধ্যে নতুন এই ব্যাকটেরিয়া হানা আমেরিকায় ভীতির সঞ্চার করেছে। এমনিতেই ট্রাম্প প্রশাসনের ব্যর্থতার জন্য আমেরিকায় করোনা পরিস্থিতি উদ্বেগজনক হয়ে রয়েছে।তার মধ্যে নতুন এই ব্যাকটেরিয়া হানা মার্কিন নাগরিকদের মধ্যে ভয় ও আতঙ্ক ছড়িয়েছে।

About By Editor

Check Also

ভালোবাসার টানে ১ সন্তানের মা ভারত থেকে চলে আসলেন বাংলাদেশে

ভালোবাসার টানে ১ সন্তানের মা ভারত থেকে চলে আসলেন বাংলাদেশে- প্রেম মানে না কোনো বাঁধা, …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *