Image: google

মহাদেবের চোখের জলে তৈরি হয়েছে এই শিব মন্দির

সারা বিশ্বের নানা স্থানে ছড়িয়ে রয়েছে অগণিত শিব মন্দির। এই সকল মন্দিরগুলোকে ঘিরে রয়েছে নানা রকম অজানা তথ্য ও কাহিনী। তেমনই পাকিস্থানের এক শিব মন্দিররেক ঘিরেও রয়েছে রহস্যজনক একটি কাহিনী। কথিত আছে যে, এই মন্দিরের সামনের পুকুরে নাকি শিব ঠাকুরের চোখের জলেই উৎপন্ন

কাটাসরাজ মন্দির নামে এই মন্দিরটি পরিচিতি। এছাড়াও এই পুকুুরের চারপাশে রয়েছে আরও ৭টি মন্দির। পাক অধিকৃত পাঞ্চাব অঞ্চরের চাকওয়াল জেলায় এই মন্দিরটি অবস্থিত। শিবের স্ত্রী সতী যখন মারা গিয়েছিলেন ঠিক এই জায়গাতে বসে কেঁদে ছিলেন মাহাদেব। শুধু শিব ঠাকুরই নয়। এই পুকুরটিকে ঘিরে মহা ভারতের একটি গল্পও জড়িত রয়েছে। মহাভারতে পঞ্চপান্ডবেরা নির্বাসনের যখন ছিলেন সেই সময়ে তারা মন্দিরটি তৈরি করেন বলে জানা যায়।

মহাকাব্য অনুসারে, নির্বাসনে থাকার সময় পঞ্চপান্ডবেরা এসেছিলেন জল পান করতে। কিন্তু সে সমসয় যক্ষ ওই নদীর রক্ষাকারী পঞ্চ পান্ডবকে সেই জল খেতে দেননি। সেই পঞ্চ পান্ডবের সামনে কিছু প্রশ্ন রাখে আর বলে যে, যদি এই প্রশ্নের উত্তরগুলি তারা দিতে পারে তাহলেই কেবল জল খাওয়ার যোগ্য তারা। ‍কিন্তু পঞ্চ পান্ডবদের মধ্যে শুধু মাত্র যুধিষ্ঠির এই প্রশ্নের জবাব দিতে পেরেছিলেন। আর বাকিরা কেউ সে প্রশ্নগুলির উত্তর দিতে পারেনি।

শিবরাত্রির দিন ওই এলাকায় সকল হিন্দুরা এই মন্দিরে পুজো দিতে আসতেন। মন্দিরে পুজো দেওয়ার পাশাপাশি তারাও এই পুকুরে স্নান করতেন। যদিও বর্তমানে এই মন্দিরের আশে পাশে কোন হিন্দু না থাকায় এই মন্দিরটি আপাদত পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে রয়েছ। এমনকি এটি ওয়াল্ড হেরিটেজ সাইটেরও অর্ন্তভুক্ত।

এখানে কিছু বৌদ্ধ মন্দির ও অদূরে আরও কিছু হিন্দু মন্দির রয়েছে। এখানে আল বিরুনি এসেছিলেন এবং সেখানে তিনি সংস্কৃত ভাষাও শিখেছিলেন। এই মন্দিরের পাশে যে সরোবর রয়েছে তার জলকে অত্যন্ত পবিত্র বলে মেনে থাকে হিন্দু র্ধমালম্বী লোকজন। চাইলে আপনিও ঘুরে আসতে পারেন পাকিস্থানের এই মন্দির।

About By Editor

Check Also

ভালোবাসার টানে ১ সন্তানের মা ভারত থেকে চলে আসলেন বাংলাদেশে

ভালোবাসার টানে ১ সন্তানের মা ভারত থেকে চলে আসলেন বাংলাদেশে- প্রেম মানে না কোনো বাঁধা, …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x