Image: google

দীর্ঘসময় মাস্ক ব্যবহারে হতে পারে ত্বকের ক্ষতি! যেভাবে ত্বক ভালো রাখবেন

দীর্ঘসময় মাস্ক ব্যবহারে হতে পারে ত্বকের ক্ষতি! যেভাবে ত্বক ভালো রাখবেন – প্রতি দিন ঘড়ি পরতে পরতে ত্বকের ওই জায়গার রঙে তফাত হয়ে যায়। ঠিক একই সমস্যা হতে পারে একটানা মাস্ক পরলেও।

মাস্ক পরার ফলে ত্বকে কী কী ধরনের সমস্যা হতে পারে, আর তার থেকে বাঁচার উপায়ই বা কী? ঘামের সমস্যা মাস্কে নাকমুখ ঢাকা থাকলে গরমকালে ঘাম তো হবেই। সুতির কাপড়ের তৈরি একাধিক স্তরবিশিষ্ট মাস্ক পরতে পারেন। সংক্রমণের উপসর্গ না থাকলে আপাতত বাড়ির ভিতরে মাস্ক পরার দরকার নেই।

বাইরে যাওয়ার সময় মনে করে ব্যাগে ওয়েট টিস্যু রাখুন। মুখ ঘেমে গেলেই ফাঁকা জায়গায় হাত স্যানিটাইজ করে টিস্যু দিয়ে ঘাম মুছে নিন। লালচে ত্বক সেনসিটিভ ত্বকে মাস্ক পরলে ত্বক লাল হবেই, বা র‍্যাশ বেরোনোর আশঙ্কাও থাকে। অনেক সময় জায়গাটা চুলকোয়, পাতলা সাদা চামড়া উঠতে থাকে। বাড়ি এসে মুখ ফেসওয়াশে ধোয়ার পর ঠান্ডা জল দিন।

শেষে অ্যালোভেরা জেল লাগাতে পারেন তাতে ধীরে ধীরে লালচে ভাব কেটে যাবে। ব্রণর উৎপাত নাক-মুখ একটানা মাস্ক দিয়ে চেপে ঢেকে রাখার ফলে ওই অংশে খুব ঘাম হয়। যাঁদের ব্রণর ধাত, তাঁদের সমস্যা বেশি। গোটা অংশ ব্রণয় ভরে যেতে পারে।

এ ক্ষেত্রে খুব ভালো ফল পাবেন স্পট ট্রিটমেন্টে। ব্রণ নিরাময়ের যে সব ক্রিম ওষুধের দোকানে পাওয়া যায়, তা ব্যবহার করতে পারেন। ঘরোয়া পদ্ধতির মধ্যে চন্দন বেটে ব্রণর ওপরে লাগান। বাইরে থেকে ফিরে অয়েল-ফ্রি ফেসওয়াশ দিয়ে মুখ ধুয়ে হালকা ধরনের ময়শ্চারাইজার লাগান।

অ্যালার্জি হচ্ছে মুখে মাস্ক পরলেই যদি জ্বালা করে, চুলকোয়, দানা দানা বেরোয় তা হলে বুঝতে হবে মাস্কের উপাদানটি ত্বকে সহ্য হচ্ছে না। তাই অ্যালার্জি হচ্ছে। মাস্কের ধরন বদলে দেখুন। সব থেকে ভালো সুতির কাপড়ের তৈরি একাধিক স্তর বিশিষ্ট মাস্ক। ত্বকের রঙ বদল একটানা কোনো জায়গা চাপা থাকলে সে অংশে রঙের তফাত হবেই। সেটি ঘড়ি বা চটি ইত্যাদি ব্যবহারের সময় বার বারই আমরা দেখেছি।

ঠিক তেমনি একটানা মাস্ক পরলে মুখেও একই অবস্থা হবে। মাস্কে ঢাকা থাকা অংশটুকুর রং বাকি অংশের চেয়ে হালকা দেখাবে। কিন্তু মাস্ক পরতেই হবে, এ ক্ষেত্রে উপায় হল পুরো মুখ ঢেকে ফেলা। বাইরে বেরোলে সুতির নরম স্কার্ফ বা ওড়না দিয়ে পুরো মুখ আর মাথা ঢেকে নিন,

চোখে পরুন রোদচশমা। কোভিড থেকেও বাঁচবেন, আবার ত্বককেও ক্ষতি হবে না। চলুন তবে জেনে নেওয়া যাক ত্বক ভালো রাখার বিশেষ টিপস –

১। ভেজা মাস্ক পরবেন না। সংক্রমণ হতে পারে। হতে পারে ত্বকের সমস্যাও। তাই সঙ্গে দু’ তিনটি বাড়তি মাস্ক রাখুন। ভিজে গেলেই বদলে নিন।
২। মাস্ক পরার আগে মুখে শিয়া বাটার, কোকো বাটার, জোজোবা অয়েল – এ রকম কোনো ক্রিম বা ময়শ্চারাইজার মেখে নিন। ত্বক ভালো থাকবে।

৩। মেকআপ না করাই ভালো। এতে ভাইরাস আটকে থাকে। সঙ্গে মুখও খুব ঘামে।
৪। ত্বকের নিয়মিত যত্ন নিতে হবে। ক্লেনজিং, টোনিং, ময়শ্চারাইজিং করতে হবে। অ্যালোভেরা বেসড টোনার আর ময়শ্চারাইজার ত্বকের জন্য খুবই ভালো।

৫। ত্বক জ্বালা করলে বা লাল হলে অই অংশগুলিতে বরফের কমপ্রেস করুন। পাতলা কাপড়ে বরফ মুড়ে নেবেন। আরাম পাবেন।

About By Editor

Check Also

ভালোবাসার টানে ১ সন্তানের মা ভারত থেকে চলে আসলেন বাংলাদেশে

ভালোবাসার টানে ১ সন্তানের মা ভারত থেকে চলে আসলেন বাংলাদেশে- প্রেম মানে না কোনো বাঁধা, …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x