Thursday , November 26 2020
Image: google

করোনা ভাইরাস সর্ম্পকে ভয়ংকর তথ্য দিলেন হু……

করোনা ভাইরাস সর্ম্পকে ভয়ংকর তথ্য দিলেন হু…… – করোনা মহামারি বন্ধে চলমান কোয়ারেন্টাইন বা সঙ্গরোধ সংক্রান্ত তৎপরতার যথেষ্ট নয়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বা ‘হু’এর জরুরি বিষয়ক শীর্ষ কর্মকর্তা মাইক রেয়ান এ কথা বলেছেন। আজ রোববার এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, করোনা মহামারির প্রকোপ বন্ধ করতে হলে কোভিড-১৯’এ যারা আক্রান্ত হয়েছেন,

যাদের দেহে করোনা ভাইরাস রয়েছে তাদেরকে খুঁজে বের করতে হবে এবং তাদেরকে পুরোপুরি একঘরে করতে হবে। পাশাপাশি এমন সব ব্যক্তির সংস্পর্শে যারা এসেছেন তাদেরও খুঁজে বের করতে হবে এবং একই ভাবে তাদেরকেও একঘরে করতে হবে বলে জানান তিনি। তিনি বলেন,

এখন কোথাও কোথাও স্বাভাবিক জীবন যাত্রা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে, চলাচলের ওপর বিধি নিষেধ আরোপ করা হয়েছে, দোকানপাট বন্ধ রাখা হচ্ছে। জরুরি নয় এমন সব তৎপরতা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে বা লকডাউন করা হয়েছে। কিন্তু সে সব পদক্ষেপ তুলে নেওয়ার পর করোনার প্রকোপ হয়ত আবার ফিরে আসবে বলে আশঙ্কা ব্যক্ত করেন তিনি।

করোনার লড়াইয়ে যুক্তরাষ্ট্র-ব্রিটেন-ইতালিকে পেছনে ফেলে দিল ভারত!

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর মানবসভ্যতার সামনে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে এসেছে নভেল করোনাভাইরাস। হুমকির মুখে মানব জাতির অস্তিত্ব। দেশে দেশে চলছে লকডাউন, ঘরে বন্দি মানুষ। তবুও প্রতিদিনই বাড়ছে মৃত্যুর মিছিল। আক্রান্ত বাড়ছে প্রতি মিনিটে। এরই মধ্যে বিশ্বজুড়ে মারণ এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে প্রায় সাড়ে ১৭ লাখেরও বেশি মানুষ।

মৃত্যুর সংখ্যা লাখ পেরিয়ে গেছে। কার্যকর কোন ওষুধ নেই, নেই কোন প্রতিষেধক। মৃত্যুপুরীতে পরিণত হয়েছে উন্নত বিশ্বের দেশ বলে পরিচিত যুক্তরাষ্ট্র, ইতালি, স্পেন, ফ্রান্স, ব্রিটেন। তবে আশ্চর্য হলেও সত্য করোনা মোকাবেলার লড়াইয়ে বহু উন্নত দেশের থেকেই এগিয়ে রয়েছে ১৩০ কোটি জনসংখ্যার দেশ ভারত। এমনটাই উঠে এলো অক্সফোর্ড কভিড-১৯ গভর্নমেন্ট রেসপন্স ট্র্যাকার (ওএক্সসিজিআরটি) শীর্ষক এক সমীক্ষায়। সেখানে বলা হয়েছে,

করোন যুদ্ধে সাফল্যের নিরিখে ভারত ব্রিটেন, ইতালি, যুক্তরাষ্ট্র, স্পেন, ফ্রান্স, জার্মানির মতো দেশগুলির থেকে যোজন যোজন এগিয়ে আছে। গত চারমাস ধরে একের পর এক দেশকে ক্ষতিগ্রস্থ করে চলেছে মারণ ভাইরাস করোনা। এই পরিস্থিতিতে অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির সমীক্ষকদল খতিয়ে দেখেছে, কোন দেশের সরকার কী ধরনের স্বাস্থ্যনীতি নিয়ে চলছে। তুলনামূলক ভাবে দেখা হয়েছে আক্রান্তের সংখ্যা এবং সাফল্যের হারও। সেই নিরিখেই একটি ইনডেস্ক তৈরি করেছে গবেষক দল।

সেখানেই ভারতের এই সফলতার স্বীকৃতি উঠে এসেছে। মূলত ১৩টি বিষয়কে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছিল এই গবেষণায়। তার মধ্যে রয়েছে, কত দ্রুত স্কুল কলেজ বন্ধ করা গেছে, কিভাবে রাস্তাঘাটে জনসমাবেশ এড়াতে পেড়েছে সরকার, আন্তরাজ্য যোগাযোগ কতটা আটকানো গেছে, আর্থিক প্যাকেজ,

জনতার উদ্দেশ্যে প্রচার,স্বাস্থ্যক্ষেত্রে বিনিয়োগের পরিমাণ, টীকা আবিষ্কারে বিনিয়োগ, নমুনা পরীক্ষায় বিনিয়োগ ও আক্রান্তের সংস্পর্শে এসেছেন এমন ব্যক্তিদের খুঁজে বের করা। উল্লিখিত ১৩টি প্যারামিটারের সবগুলিতেই উন্নত বিশ্বের দেশগুলি থেকে এগিয়ে রয়েছে নরেন্দ্র মোদির ভারত।

About By Editor

Check Also

ভালোবাসার টানে ১ সন্তানের মা ভারত থেকে চলে আসলেন বাংলাদেশে

ভালোবাসার টানে ১ সন্তানের মা ভারত থেকে চলে আসলেন বাংলাদেশে- প্রেম মানে না কোনো বাঁধা, …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x