Image: google

করোনা থেকে রেহাই দেবে এই ঘরোয়া টোটকা

করোনা থেকে রেহাই দেবে এই ঘরোয়া টোটকা – করোনা থেকে বেঁচে থাকতে বেশকিছু খাবার বর্জনের পরামর্শ দিচ্ছেন চিকিৎসা বিজ্ঞানী ও পুষ্টিবিদরা। তারা সতর্ক করে বলছেন, ফাস্টফুড ও প্রক্রিয়াজাত খাবার খাওয়া যাবে না, চিনি বাদ দিতে হবে এবং ধূমপানও ছেড়ে দিতে হবে।

তাদের মতে, এসব খাবারে শাররীক জটিলতা বাড়বে, যা কভিড-১৯ এ মৃত্যুর কারণ হতে পারে। ইউরোপীয়ান সায়েন্টিস্ট ম্যাগাজিনে এক প্রতিবেদনে বলা হয়, যুক্তরাজ্যে হাসপাতালগুলোর আইসিইউতে প্রথম যে কয়েকহাজার রোগী ভর্তি হয় তাদের মধ্যে তিনভাগেরই ছিলো অতিরিক্ত ওজন বা স্থূলতা।

এছাড়া যাদের টাইপ-টু ডায়বেটিস ও বিপাকীয় সিন্ড্রম রয়েছে তারা করোনায় আক্রান্ত হলে মৃত্যুর ঝুঁকি ১০ গুণ বেড়ে যায়। এ গবেষণাটি পরিচালনা করেন যুক্তরাজ্যের এনএইচএস এর কার্ডিওলোজিস্ট আসিম মালহোত্রা। তিনি বলেন, ‘আপনি চিনি এবং প্রক্রিয়াজাত খাবার খাওয়া বন্ধ করে দিন, দেখবেন কয়েক সপ্তাহের মধ্যে এর সুফল পাচ্ছেন।

আপনার দেহে করোনাভাইরাসের ঝুঁকি কমে আসবে।’ এইউটির সিনিয়র লেকচারার এবং পুষ্টিবিদ ক্যারিন জিন বলেন, ‌’মালহোত্রা যা বলেছেন একেবারে সঠিক বলেছেন। এগুলো সবার মেনে চলা উচিত।’ তিনি বলেন, ‘আমরা যদি করোনাভাইরাস থেকে বেঁচে থাকতে চাই তাহলে আমাদের শক্তিশালী রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তুলতে হবে এবং বিপাকীয় সুস্থতা নিশ্চিত করতে হবে।

এ জন্য অবশ্যই অপক্রিয়াজাত খাবার আমাদের খেতে হবে। এতে দেহে সুগারের মাত্রা স্বাভাবিক থাকবে। এর পাশাপাশি পর্যাপ্ত ঘুমাতে হবে, নিয়মিত ব্যায়াম করতে হবে, মানসিক চিন্তা কমাতে হবে এবং পরিবারের সঙ্গে সুন্দর সময় কাটাতে হবে।’ তিনি বলেন, ‘উদ্বিগ্ন থাকার সময় অনেকেই খাবারের ঝামেলা এড়াতে প্যাকেটজাত খাবার খায়। অথচ এ মূহুর্তে এটি একটি নিকৃষ্ট পছন্দ।

প্রক্রিয়াজাত খাবারে খুব একটা পুষ্টি নেই অথচ ওজন বাড়ায় ও স্থূলতা তৈরী করে। যা করোনায় মৃত্যুর কারণ হয়।’ এর পাশাপাশি ধূমপান বর্জনেরও পরামর্শ দিচ্ছেন ডাক্তাররা। তাদের মতে, ধূমপান ফুসফুসকে আগে থেকেই দূর্বল করে দেয়, ফলে কভিড-১৯ এ যে কেউ সহজে মারা যায়।

করোনাভাইরাসের প্রকোপে বিপর্যস্ত গোটা বিশ্ব। এই পরিস্থিতিতে সামান্য কয়েকটা কাজ করলেই শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে উঠবে। কী সেই টোটকা? আসুন জেনে নিই…

১. প্রতিদিন এক গ্লাস করে গরম পানি খান।
২. প্রতিদিন অন্তত ত্রিশ মিনিট যোগাসন প্র্যাকটিস কর়ুন।তালিকায় থাকুক প্রাণায়মও।

৩. প্রতিদিন হলুদ মিশ্রিত দুধ তালিকায় রাখুন।
৪. তুলসী, গোলমরিচ, শুকনো আদা দিয়ে একটি মিশ্রন বানিয়ে নিন। এতে দিতে পারেন পাতিলেবুর রসও।

৫. প্রতিদিন সকালে চবনপ্রাশ খান।
৬. রান্নায় হলুদ, ধনেপাতা, রসুন ব্যবহার করুন।

About By Editor

Check Also

ভালোবাসার টানে ১ সন্তানের মা ভারত থেকে চলে আসলেন বাংলাদেশে

ভালোবাসার টানে ১ সন্তানের মা ভারত থেকে চলে আসলেন বাংলাদেশে- প্রেম মানে না কোনো বাঁধা, …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *