Image: google

এক নজরে ভারতের ভয়াবহ রেল দূর্ঘটনাসমূহ

এক নজরে ভারতের ভয়াবহ রেল দূর্ঘটনাসমূহ- কানপুরে পটনা-ইন্দোর এক্সপ্রেসের লাইনচ্যুত হওয়ার ঘটনা ফের রেলের নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন তুলে দিল। ভারতবাসীর নির্বিঘ্নে বুলেট ট্রেন চড়ার স্বপ্ন আদৌ বাস্তবায়িত করতে সক্ষম রেল ?

কারণ, ইতিহাস বলছে, স্বাধীনতার পরবর্তী কালে যে ক’টি ভয়াবহ রেল দুর্ঘটনা হয়েছে তার অনেকগুলোর ক্ষেত্রেই অভিযোগ উঠেছে রেলের ‘গাফিলতি’-র।

৬ জুন, ১৯৮১ বিহারের সাহারসায় বাঘমতি নদীতে পড়ে যায় একটি যাত্রীবাহী ট্রেন। মারা যান প্রায় ৮০০ যাত্রী। শুধু ভারতে নয় সারা পৃথিবীর মধ্যে একটি ভয়ঙ্করতম রেল দুর্ঘটনা এটি। এই দুর্ঘটনার কারণ স্পষ্ট নয়।

২০ আগস্ট, ১৯৯৫ উত্তরপ্রদেশের ফিরোজাবাদের কাছে দিল্লিগামী পুরুষোত্তম এক্সপ্রেসের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয় কালিন্দি এক্সপ্রেসের। এই দুর্ঘটনায় উভয় ট্রেনের প্রায় ৩৫০-রও বেশি মানুষ মারা যান। একটি গরুকে ধাক্কা মারার পর কালিন্দি এক্সপ্রেসের ‘ব্রেক জ্যাম’ হয়ে যায়। সেই সময় সিগন্যাল দেওয়া হয় পুরুষোত্তম এক্সপ্রেসকে। একই লাইনে দুটি ট্রেন চলে আসায় এই দুর্ঘটনা ঘটে।

২ আগস্ট, ১৯৯৯ গাইসলে রেলের কাটিহার ডিভিশনে আওয়াদ-আসাম এক্সপ্রেসের সঙ্গে ব্রহ্মপুত্র মেলের সংঘর্ষে ২৬৮ জনের মৃত্যু হয়। আহত হন ৩৫৯ জন। ভুল করে সিগনাল দেওয়ার কারণে দুটি ট্রেন একই লাইনে চলে আসে।

২৬ নভেম্বর, ১৯৯৮ পঞ্জাবের খান্নায় অমৃতসরগামী স্বর্ণমন্দির মেলের তিনটি লাইনচ্যুত বগির সঙ্গে সংঘর্ষ হয় জম্মু তাওয়াই-শিয়ালদা এক্সপ্রেসের। ঘটনায় ২১২ জন মারা যান। লাইনে ফাটল থাকার কারণে লাইনচ্যুত হয় স্বর্ণমন্দির এক্সপ্রেস।

২৮ মে, ২০১০ পশ্চিম মেদিনীপুরের সরডিহায় সন্দেহভাজন লাইনচ্যুত হয়ে যায় জ্ঞানেশ্বরী সুপার ডিলাক্স এক্সপ্রেস। ধাক্কা লাগে উল্টো দিক থেকে আসা মালগাড়ির সঙ্গে। মারা যান ১৭০ জন যাত্রী। কোনো বিস্ফোরণ হয়েছিল, নাকি অন্তর্ঘাত করে ফিশ প্লেট খুলে রাখা হয়েছিল, সেই রহস্যের সমাধান হয়নি।

৩ ডিসেম্বর, ১৯৬৪ রামেশ্বরমে ঘুর্ণিঝড়ে পাম্বান-ধনুষ্কোডি প্যাসেঞ্জার ট্রেন কার্যত উড়ে যায়। এই দুর্ঘটনায় ১৫০ জন মারা যান।

৯ সেপ্টেম্বর, ২০০২ গয়ার মাঝামাঝি রফিগঞ্জ স্টেশনে লাইনচ্যুত হয়ে যায় রাজধানী এক্সপ্রেস। ঘটনায় ১৪০ জনের মৃত্যু হয়। বৃটিশ আমলে পাতা লাইনে ফাটলের কারণে এই দুর্ঘটনা ঘটে।
২৮ সেপ্টেম্বর, ১৯৫৪ হায়দরাবাদের দক্ষিণে একটি যশোন্তী নদীর উপর একটি ট্রেন ব্রিজ ভেঙে নদীতে পড়ে গেলে ১৩৯ জনের মৃত্যু হয়। আহত হয় ১০০ জন।

২ সেপ্টেম্বর, ১৯৫৭ হায়দরাবাদে একটি ট্রেনের উপর ব্রিজ ভেঙে পড়ায় ১২৫ জনের মৃত্যু হয়, আহত ২২।
১৭ জুলাই, ১৯৩৭ কলকাতা থেকে আসা একটি এক্সপ্রেস ট্রেন নদী বাঁধের উপর দিয়ে যাওয়ার সময় তা ভেঙে পড়লে ১১৯ জনের মৃত্যু।

About By Editor

Check Also

ভালোবাসার টানে ১ সন্তানের মা ভারত থেকে চলে আসলেন বাংলাদেশে

ভালোবাসার টানে ১ সন্তানের মা ভারত থেকে চলে আসলেন বাংলাদেশে- প্রেম মানে না কোনো বাঁধা, …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *